ArabicBengaliEnglishHindi

৮ মাসে চালু হয়নি মৌলভীবাজারে নরেন্দ্র মোদীর উপহার কার্ডিওলজি এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস


প্রকাশের সময় : এপ্রিল ১৭, ২০২২, ১:৩০ অপরাহ্ন / ২৫
৮ মাসে চালু হয়নি মৌলভীবাজারে নরেন্দ্র মোদীর উপহার কার্ডিওলজি এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস

মারুফ আহমেদ, মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি ->>
মৌলভীবাজারে মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দেওয়া উপহার কার্ডিওলজি এ্যাম্বুলেন্সটি অদ্যাবধি চালু করতে পারেনি মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। অত্যাধুনিক কার্ডিওলজি এ্যাম্বুলেন্স পেয়ে রোগীদের মনে জ্বেলে উঠা আশার প্রদীপ কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারনে নিবে গেছে অনেক প্রাণ।

প্রায় ১ কোটি ২৫ লাখ টাকার টাকার কার্ডিওলজি এ্যাম্বুলেন্সটি পড়ে আছে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের নতুন বিল্ডিং এর সামনে। ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে পাওয়া অত্যানুধিক উপহার সম্পর্কে সাধারন মানুষ তো দুরের কথা অনেক বিজ্ঞজনের ধারনা নেই। কোন প্রকারের রোগীরা এই সেবা পেতে পারেন। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা: হুমায়ুন কবির বারবার আশ্বাস্ত করছেন যন্ত্রপাতি সেটাপ চলছে। শীগ্রীই সার্ভিস চালু হবে। এই আশার বাণী শুনতে শুনতে জৈনক সৌদী আরব প্রবাসী ব্যক্তির ছেলের প্রাণ প্রদীপ নিবে গেছে।

কার্ডিওলজি এ্যাম্বুলেন্সটি চলন্ত একটি মিনি হাসপাতাল বলা যেতে পারে। কোন মুমূর্ষ রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার্ড করা হলে রাাস্তায় সর্বাধুনিক চিকিৎসা সেবা পেতে পারে চলন্ত অবস্থায়। অতচ এই চলন্ত মিনি হাসপাতালকে নিয়ে চলছে টালবাহানা। মৌলভীবাজারের পার্শ্ববর্তী জেলা হবিগঞ্জ জেলায় এই সার্ভিসটি চালু হয়ে গেছে অনেক আগে। আর মৌলভীবাজার জেলায় সার্ভিসটি চালু না হওয়ার কারনে কয়েক জন হার্ডের রোগী রাস্তায় মারা গেছেন বলে অনেক রোগীর স্বজনরা অভিযোগ করেছেন।

এদিকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে সরকারী ২টি এ্যাম্বুলেন্স নিয়েও অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। রোগীর স্বজনরা এ্যাম্বুলেন্সের খোঁজ করলে জানা যায় এ্যাম্বুলেন্স বাহিরে রোগী নিয়ে গেছে। অথচ অফিসের তথ্য মতে গত ১ মাসে ২টি সরকারী এ্যাম্বুলেন্স ৪১ বার সার্ভিস দিয়েছে।

সরকারী নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি এ্যাম্বুলেন্স দৈনিক ৩ বার রোগী নিযে যাতায়াত করতে পারে। কিন্তু মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের দৈনিক একবার করেও যাতাযাত করতে পারেনি। কার্ডিওলজি এ্যাম্বুলেন্সটি চালু না হওয়ার বিষয়ে এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপ কালে তত্ত্বাবধায়ক ডা: হুমায়ুন কবির বলেন, যন্ত্রপাতি সেটআপ করতে সময় লেগেছে বেশ কিছু দিন।

আর বর্তমানে চালক অসুস্থ থাকায় সার্ভিসটি চালু করা যাচ্ছেনা। তবে ২/৩ দিনের মধ্যে চালু হয়ে যাবে।