ArabicBengaliEnglishHindi

লালমনিরহাটে কৃষকরা গম চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ৮, ২০২২, ১০:৪৯ অপরাহ্ন / ১১১
লালমনিরহাটে কৃষকরা গম চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে

লালমনিরহাট প্রতিনিধি ->>
লালমনিরহাটের কৃষকদের উৎপাদন খরচ না ওঠায় গম চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে । গত কয়েক বছর যাবৎ সরকারের কাছে গম বিক্রি করতে না পারাসহ ক্রমাগত লোকসানের পরে এখন অন্য ফসল উৎপাদনে ঝুঁকছেন তারা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরও বাজারে দাম না পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনে গম উৎপাদনও হ্রাস পাচ্ছে। তবে এ অবস্থা কাটাতে উন্নত জাতের গম আবাদের পরামর্শ দিয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।

লালমনিরহাটে কৃষিজাত ফসলের অন্যতম আবাদ ছিল গম। এক সময় ব্যাপক হারে গম উৎপাদন হতো লালমনিরহাট জেলায়।

শীত দীর্ঘমেয়াদি থাকাসহ আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ লালমনিরহাট জেলায় গমেরও বাম্পার ফলন হয়েছে। কিন্তু সরকারের ঘোষিত ন্যায্য দরে সংগ্রহ অভিযানে গম দিতে না পারা, বাজার নিম্নমুখী হওয়ায় ক্রমাগত লোকসান গুনতে হয়েছে চাষিদের। তাই এ জেলায় গমের আবাদও কমে গেছে আশঙ্কাজনক হারে।

কৃষকদের অভিযোগ, উৎপাদন খরচ না ওঠায় গমের আবাদ থেকে মুখ ফেরাচ্ছেন তারা। তাই এখন বিকল্প ফসল উৎপাদনে ঝুঁকছেন তারা।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার কোদালখাতা গ্রামের কৃষক মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, গমের ফলন কমছে। তারপর গম বিক্রি করে দাম কম পাই। খরচও ওঠে না।

ওই উপজেলার ফুলগাছ গ্রামের মোঃ হযরত আলী বলেন, সরকারের গম সংগ্রহে কৃষকরা গম দিতে পারে না। সরকার গমের উচ্চ দাম ঘোষণা করলেও এর সুফল পায় সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা। তাই গম চাষে আগ্রহ তেমন নাই।

লালমনিরহাট সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মারুফা ইফতেখার সিদ্দিকা জানান, ১হাজার ২০জন কৃষককে গম চাষের জন্য ২০হাজার ৪শত কেজি বীজ, ১০হাজার ২শত কেজি ডিএপি সার ও ১০হাজার ২শত কেজি এমওপি সার সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।