ArabicBengaliEnglishHindi

মাদকমুক্ত শিবপুর গড়তে প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের আন্তরিক হওয়া উচিত


প্রকাশের সময় : মার্চ ২৪, ২০২২, ১১:২৮ পূর্বাহ্ন / ১২৬
মাদকমুক্ত শিবপুর গড়তে প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের আন্তরিক হওয়া উচিত

মাদক!মাদকের ছোবলে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে আমাদের যূব সমাজ।মাদকের নেশায় আসক্ত হয়ে শেষ হয়ে যাচ্ছে নেশাগ্রস্থ  যুবকের ভবিষ্যত। একজন মানুষের নৈতিক চরিএ নষ্ট করার জন্য মাদকই যথেষ্ট। মাদকের এই আগ্রাসনের ফলে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে আমাদের পারিবারিক ও সামাজিক নিরাপত্তা। প্রত্যেক দেশের মূলচালিকা শক্তি হচ্ছে  দেশের যুব সমাজ।আর যুব সমাজকে ধ্বংস করতে প্রধান হাতিয়ার  মাদককে ব্যবহার করা হচ্ছে। বাংলাদেশের শহরে,গ্রামে সব খানেই অবাধে  পাওয়া যায় মাদকদ্রব্য। মাদকদ্রব্যের মধ্যে রয়েছে  মদ, গাজা, ,ফেনসেডিল,বাবা বড়ি ও ইয়াবা টেবলেট । হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় এসব নেশা জাতীয় দ্রব্য। সারাদেশের ন্যায় নরসিংদীর শিবপুরও এর ব্যতিক্রম নয়। এই উপজেলায় শিবপুর পৌরসভা সহ নয়টি ইউনিয়ন রয়েছে।এখানে লোক সংখ্যা প্রায় আড়াই লাখের মতো।শিবপুর পৌরসভা সহ উপজেলার এমন কোন এলাকা নেই যেখানে মাদকের আছর পরেনি। অবাধে বিক্রি হচ্ছে মাদকদ্রব্য। উপজেলা পুলিশ প্রশাসনের উদ্যোগে মাঝে মধ্যে অভিযান চালালেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অনেকটাই কম। মাদক বিক্রেতাদের মধ্য থেকে ২/১ জনকে   পুলিশ আটক করে টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়ার সহ  পুলিশ প্রশাসনের সাথে মাদক বিক্রেতারদের  রয়েছে ভালো সম্পর্ক এমন অভিযোগও  রয়েছে পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে। তবে মাদক নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে যুব সমাজকে ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে সাধ্যমত  চেষ্টা করে যাচ্ছেন  পুলিশ  এমনটাই দাবী  শিবপুর পুলিশ প্রশাসনের। স্হানীয় রাজনৈতিক নেতারা মনে করেন মাদকমুক্ত শিবপুর গড়তে পুলিশ প্রশাসনকে আরো জোড়ালো ভূমিকা রাখতে হবে।পুলিশ প্রশাসন যদি রাজনৈতিক নেতাদের সহযোগিতার প্রয়োজন অনুভব করেন তাহলে মাদকমুক্ত শিবপুর গড়তে আমরা সবসময় প্রস্তুত আছি।

 

বর্তমান সময়ে মাদকের আগ্রাসন এতটাই প্রভাব বিস্তার করেছে  যা বলার অপেক্ষা রাখে না। মাদক ব্যবসার  টাকা ভাগাভাগি নিয়ে দুপক্রের মধ্যে প্রকাশ্যে মারামারি সহ খুনের মতো ঘটনাও ঘটেছে।

শিবপুর উপজেলার দুলালপুর ইউনিয়নের গড়বাড়ী বাজারে মাদকের টাকার ভাগাভাগি নিয়ে দুগ্রুপের মধ্যে দিনে দুপুরে হাতাহাতি থেকে মারামারি পর্যন্ত হয়েছে । এছাড়াও গত ফেব্রুয়ারী মাসে মাদকের টাকার ভাগাভাগি নিয়ে উপজেলার ঢাকা সিলেট মহাসড়কের শিবপুর উপজেলা শিফুলিয়া বাজারের পাশে দুই ব্যক্তি খুন হয়।অবশ্য খুন হওয়ার ৪৮ ঘন্টার মধ্যেই খুনের সাথে জড়িত থাকার মুল আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

 

গত ২০১৮ সালের ২৬ জুন মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অডিটোরিয়াম মিলনায়তনে আলোচনা সভা সহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়।আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন শিবপুরের সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পৌর প্রশাসক শীলু রায়, সাবেক শিবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, সাবেক শিবপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সদস্য সচীব আলহাজ্ব আরিফ উল ইসলাম মৃধা,  সাবেক শিবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি একে এম হিরন আহমেদ,  শিবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব সামসুল আলম ভূইয়া রাখিল প্রমুখ। কিন্তু সাবেক  সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম মোল্লা ও সাবেক  উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আলহাজ্ব হারুন অর রশীদ খাঁন উক্ত আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন না।

অনুষ্ঠিত এই আলোচনা সভায় উপস্হিত সরকারী কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতারা হাতে লাল কার্ড নিয়ে শপথ করেছিলেন প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় শিবপুর কে মাদক মুক্ত করা হবে।কিন্তু প্রায় চার বছর পার হলেও মাদক মুক্ত শিবপুর গড়তে কোন কার্যকর ব্যবস্হা গ্রহণ করতে দেখা যায় নি। ফলে উপজেলার সর্বএ পাওয়া যাচ্ছে মাদকদ্রব্য। আর নষ্ট হচ্ছে যুব সমাজ। তাই যুব সমাজকে ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে  শিবপুর প্রশাসন সহ রাজনৈতিক নেতারা আন্তরিক হয়ে  মাদকমুক্ত শিবপুর গড়ার কাজে অবদান রাখা দরকার বলে মনে করেন শিবপুরবাসী।

 

লেখক, সম্পাদক ও প্রকাশক, অনলাইন নিউজ পোর্টাল দৈনিক শিবপুরের আলো।