ArabicBengaliEnglishHindi

ভেদরগঞ্জ সখিপুর দক্ষিণ তারাবুনিয়ায় চার সন্তানের জননীর ঝুলন্ত লাশ


প্রকাশের সময় : মার্চ ৩, ২০২২, ১২:০২ অপরাহ্ন / ১৮৪
ভেদরগঞ্জ সখিপুর দক্ষিণ তারাবুনিয়ায় চার সন্তানের জননীর ঝুলন্ত লাশ
 শরীয়তপুর প্রতিনিধি ->>
শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর দক্ষিণ তারাবুনিয়ায় ২নং ওয়ার্ডে  চার সন্তানের জননী হোসনেয়ারা বেগম (৩৬) রহস্য জনক মৃত্যুর লাশ উদ্ধার করেছে সখিপুর থানা পুলিশ।
বুধবার (০২ মার্চ) দুপুর ১২টার দিকে তার মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। মৃত. হোসনেয়ারা বেগম দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা ধুলি ফসল ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন কুরালির স্ত্রী।
নিহতের স্বামী দেলোয়ার হোসেন জানান, সকাল থেকে সংসারের কাজ করেছে হোসনেয়ারা। আমি সকাল সাতটার মধ্যে ব্যবসার কাজে মরিচ কেনার জন্য চলে যাই।  প্রতিদিনের ন্যায় আজও আমাকে হাসিমুখেই বিদায় জানায় আমার স্ত্রী হোসনেয়ারা বেগম। পরে মুঠোফোনে জানতে পারি তার মৃত্যুর খবর।
দেলোয়ার হোসেনের ছোট ভাইয়ের স্ত্রী সুফিয়া বেগম জানান, নিহতের স্বামী আমার বাসুর তিনি কাজে চলে যাওয়ার পর অনেক্ষণ দরজা বন্ধ থাকায়, বাবি কে ডাকা ডাকি করি কোন সাড়া সন্ধ না পেয়ে,  জানালা দিয়ে দেখি ঘরের আরার সাথে হোসনেয়া বাবি ঝুলছে। পরে আমি চিৎকার করলে, আশে পাশের লোকজন চলে আসে, পরে দরজা ভেঙ্গে  আমরা হোসনেয়ারা বেগম কে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামিয়ে নেই। স্থানীয় লোকদের সহযোগিতায়।
এবিষয়ে স্থানীয়রা জানান ভাল ভাবেই চলছিল তাদের সংসার তাদের ঘরে রয়েছে দুটি কন্যা সন্তান এবং দুটি পুত্র সন্তান, বড় ছেলে এবার ইন্টারমিডিয়েট পড়াশোনা করছেন। এবং এক মেয়েকে বিবাহ দিয়েছেন। কেন এ ধরনের কাজ করলো বুঝতে পারছিনা। আমি পাশ দিয়ে জেতে ছিলাম হঠাৎ চিৎকার শুনি এসে দেখি
দেহটি আরার সাথে  ঝুলছ অবস্থায় রয়েছে,  আমরা তাকে দরে  আগলি দিলে দেলোয়ার ভাইয়ের মা হোসনেয়ারার দেহটি ঝুলন্ত অবস্থা থেকে  নিচে নামায়।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহাজালাল মাল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি ঘটনা শুনে ঘটনাস্থলে আসি, এসে লোকজনের কাছ থেকে শুনি দেলোয়ার কুরালির স্ত্রী গলায় ফাঁস দিয়েছে, পরে সখিপুর থানা পুলিশ কে খবর দিলে পুলিশ এসে মরদেহ টি সুরতহাল করে। ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। আমার ইউনিয়নে এমন একটি ঘটনা খুবই দুঃখ জনক
 ও অনাকাঙ্খিত বলে জানান তিনি।
এবিষয়ে সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান আসাদ হাওলাদার বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতের মরদেহটি সুরতহাল
 করেছি। আত্মহত্যা না অন্যকিছু বিষয়টি নিচ্ছিত করা যায়নি। তবে মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।