ArabicBengaliEnglishHindi

ফুলবাড়ীতে দাদন ব্যবসায়ীদের রমরমা সুদ বাণিজ্য


প্রকাশের সময় : মে ২৯, ২০২২, ৫:৫৪ অপরাহ্ন / ২৭
ফুলবাড়ীতে দাদন ব্যবসায়ীদের রমরমা সুদ বাণিজ্য

দিনাজপুর প্রতিনিধি ->>
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে দাদন ব্যবসায়ীদের রমরমা সুদ বাণিজ্য। পৌরসভার ০২নং ওয়ার্ডের চাঁদপাড়া (মিস্ত্রিমোড়) নামক এলকায় রীতিমতো অফিস বানিয়ে প্রকাশ্যে চড়া সুদের ব্যবসা চালিয়ে আসছে কতিপয় বিপথগামী যুবক। সদস্য ফরম, ভর্তি ফরম, ঋণ নিতে ঋণের বিপরীতে সঞ্চয়, প্রতিদিন লভ্যাংশ ও সঞ্চয় আদায়সহ প্রতি লাখে ৪মাস মেয়াদী ঋণে ২০ হাজার টাকা সুদ দিতে হয় এসব দাদন ব্যবসায়ীদেরকে।

ভুক্তভোগী মালেকা বেগম জানান, তিনি ১০ হাজার ঋণ নিয়েছেন ওই এনজিও থেকে, প্রতিদিন তাকে ১০০টাকা দিতে হয়। দিতে হবে মোট ৪ মাস। অর্থ্যাৎ ৪ মাসে তারা আদায় করবে ১২,০০০/= টাকা। এছাড়া ঋণের সময় সঞ্চয়, ভর্তি ফরম বাবদ টাকা এছাড়াও প্রতিদিন সঞ্চয় দিতে হয়। যদি কোন দিন টাকা দিতে না পারি তাহলে, পরবর্তীতে জরিমানাসহ টাকা পরিশোধ করতে হয়।

রেজিষ্ট্রেশনবিহীন দাদন ব্যবসায়ীর একজন সুমনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমরা ৭জন মিলে এই এনজিও প্রতিষ্ঠা করেছি। আমাদের ৭০/৮০ হাজার টাকা ছাড়া আছে। কিন্তু নাম প্রকাশ না করার শর্তে কতিপয় ভুক্তভোগীসহ ওই এনজিওর সদস্যরা জানান, আনুমানিক ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা বিভিন্ন জনের ছাড়া আছে। যার লভ্যাংশ প্রতিদিনই তারা উত্তোলন করে।

এদিকে ফুলবাড়ীর শিবনগর ইউপির বাসুদেবপুর, দাদপুর ও পুরাতন বন্দরে দাদনের জমজমাট ব্যবসা চলছে। এতে বিভিন্ন এলাকার মানুষ এদের খপ্পরে পড়ে সর্বশান্ত হচ্ছে। সুদের টাকায় অনেকে বাড়ী গাড়ি করেছেন এবং তা অব্যাহত রয়েছে। আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার কিছু ব্যক্তিরা তাদের সাথে সখ্যতাও গড়ে তুলেছে।

দাদনের খপ্পরে পড়ে অনেকে সর্বশান্ত হওয়ার বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে গেছে। চড়া সুদে এদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে দ্বিগুন কোথাও কোথাও তিনগুন এবং ব্যাংকের ফাঁকা চেক পর্যন্ত তারা নিজেদের কাছে রেখে দিচ্ছেন সুদখোরেরা। এদের বিরুদ্ধে স্বোচ্চার না হলে এরা তালগাছের মতো বেড়ে উঠবে। ইতিপুর্বে সুদের টাকা না দিতে পেরে ২/১জন আত্মহত্যা করেছেন শিবনগর ইউপিতে।

এদের তালিকা করে আইনগত ব্যবস্থা নিতে এলাকার ভুক্তভোগীরা আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।