ArabicBengaliEnglishHindi

কালিয়াকৈরে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা


প্রকাশের সময় : এপ্রিল ১৯, ২০২২, ৯:১৭ পূর্বাহ্ন / ৩১
কালিয়াকৈরে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

স্বপন সরকার,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি ->>
গাজীপুরের কালিয়াকৈরে এক পৌর কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা করায় বাদী শ্রমিক নেতার উপর হামলা ও মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় রোববার কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ করা হয়। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে আরো একাধিক চাঁদাবাজির অভিযোগ রয়েছে। আহত হলেন, কালিয়াকৈর উপজেলার কালামপুর এলাকার ছাদত আলী শেখের ছেলে বাবুল শেখ (৫০)। তিনি কালামপুর রিকশাভ্যান সমবায় সমিতির সভাপতি।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল কাশেমসহ তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে এ চাঁদাবাজি ও হামলার অভিযোগ উঠেছে। ওই কাউন্সিলর ও তার সহযোগী আনোয়ার হোসেন, শ্রীভাস, জেলে স্বজলসহ বেশ কয়েকজন মিলে নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন ভাবে চাঁদাবাজি করে আসছে। তাদের চাহিদা মতো চাঁদার টাকা না দিলে বাড়ি নির্মাণে বাঁধা, নির্মাণ সামগ্রী আনা-নেওয়ায় বাঁধা, রাস্তায় গোলবার দিয়ে নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন ওয়ার্ডবাসী।

এমন কি ওই কাউন্সিলর ও তার সহযোগীরা ভুক্তভোগীদের উপর হামলা ও মারধর করেন এবং তিনি নিজে ঘটনাস্থলে গিয়ে নানা অজুহাতে কাজে বাঁধা প্রদান করেন। এর ধারাবাহিকতায় ১২ মার্চ কালামপুর রিকশাভ্যান সমবায় সমিতির সভাপতি বাবুল শেখের কাছে ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন ওই কাউন্সিলর ও তার সহযোগীরা। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এ ঘটনায় ২৯ মার্চ বাবুল শেখ বাদী হয়ে ওই কাউন্সিলর ও তার সহযোগীদের নামে গাজীপুর আদালতে একটি চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন।

চাঁদাবজির মামলা করায় আসামীরা তার উপর ক্ষিপ্ত হন। কিন্তু শনিবার রাতে সমিতির হিসাব নিকাশ শেষে ওই সমিতির সভাপতি বাবুল শেখ ও সাধারন সম্পাদক সোলতান মাষ্টার বাড়ী ফিরছিলেন। ফেরার পথে ৫/৬ জন লোক একটি কালা রংয়ের প্রাইভেটার যোগে এসে তাদের গতিরোধ করে। চাঁদাবাজি মামলার বাদী শ্রমিক নেতা বাবুল শেখের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে এলোপাথারি মারধর করে তাকে গুরুতর আহত করে। এসময় সমিতির সাধারন সম্পাদক সোলতান মাষ্টারকে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে তাদের ডাকচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ হামলার ঘটনায় আহত বাবুল শেখের মেয়ে বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। ওই সমিতির সভাপতি আহত বাবুল শেখ বলেন, ওই কাউন্সিলর ও তার সহযোগীরা ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করেন। এ চাঁদাবাজি দাবীর ঘটনায় আদালতে মামলা করায় আসামীরা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার উপর হামলা চালিয়ে মারধর করেছে। শুধু ওই শ্রমিক নেতার কাছেই নয়, ওই কাউন্সিলর তার নির্বাচিত এলাকায় বাড়ি নির্মাণসহ বিভিন্ন কাজে বাঁধা দিয়ে চাঁদা আদায় করে থাকে। সম্প্রতি কালামপুর এলাকায় ছয়তলা বাড়ি নির্মাণ করেন আমিনুল ইসলাম।

বাড়ি নির্মাণে অনিয়ম হয়েছে দাবী করে তার কাছে কয়েক লাখ টাকা চাঁদা চান ওই কাউন্সিলর ও তার সহযোগীরা। এছাড়াও ওই কাউন্সিলরের নামে আদালত, থানায় ও উপজেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রায় অর্ধশত অভিযোগ রয়েছে।

চাঁদাবাজি মামলার বিষয়টি স্বীকার অভিযুক্ত ওই কাউন্সিলর আবুল কাশেম জানান, আমার নামে কেন চাঁদাবাজির অভিযোগ করেছেন? তা জানি না। আমি চাঁদাবাজি করি না, সাংবাদিকরাই চাঁদাবাজি করে বলে তিনি ফোন কেটে দেন।

কালিয়াকৈর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সোহেল রানা জানান, শ্রমিক নেতা বাবুল শেখের উপর হামলার ঘটনায় তার মেয়ে শিরিন বাদী হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে।